Hello,

একটি ফ্রি একাউন্ট খোলার মাধ্যমে বই প্রেমীদের দুনিয়ায় প্রবেস করুন..🌡️

Welcome Back,

অনুগ্রহ করে আপনার একাউন্টি লগইন করুন

Forgot Password,

আপনার পাসওয়ার্ড হারিয়েছেন? আপনার ইমেইল ঠিকানা লিখুন. আপনি একটি লিঙ্ক পাবেন এবং ইমেলের মাধ্যমে একটি নতুন পাসওয়ার্ড তৈরি করবেন।

Please briefly explain why you feel this question should be reported.

Please briefly explain why you feel this answer should be reported.

Please briefly explain why you feel this user should be reported.

বই প্রেমীদের দুনিয়ায় আপনাকে স্বাগতম

এমন হলে ব্যাপারটা কেমন হয়? বাংলা ভাষা-ভাষি সকল লেখক এবং পাঠকগণ একই যায়গায় থাকবে এবং একই প্লাটফর্মে তাদের বই সম্পর্কিত অনুভূতিগুলো শেয়ার করবে। যেখানে শুধুমাত্র বই সম্পর্কিত আলোচনা হবে। কখন কোন বই প্রকাশিত হয়েছে বা হবে তা মুহুর্তেই বই প্রেমিরা জানতে পারবে। প্রিয় পাঠক, নিশ্চয়ই আপনি বই পড়তে অনেক ভালোবাসেন। আপনার লেখা বইয়ে রিভিউ গুলো খুবই সুন্দর, তাই পড়তে অনেক ভালো লাগে। বাংলাদেশে এই প্রথম পাঠকদের জন্য "বাংলাদেশ পাঠক ফোরাম" তৈরি করেছে boiinfo.com নামে চমৎকার একটি কমিউনিটি ওয়েবসাইট। এখানে আপনি আপনার বই সম্পর্কিত অনুভূতিগুলো ছড়িয়ে দিতে পারেন লাখো পাঠকের কাছে। এই ওয়েবসাইটের কি কি সুবিধা রয়েছে? এখানে খুব সহজেই অর্থাৎ শুধুমাত্র একটি ইমেইল এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে ফ্রিতে একটি অ্যাকাউন্ট খুলে আপনি হয়ে যেতে পারেন বইইনফো.কম এর একজন সম্মানিত লেখক। ১. থাকছে ফেসবুকের মত চমৎকার একটি প্রোফাইল। ২. একজন পাঠক অপরজনকে মেসেজ করার সুবিধা ৩. প্রিয়ো ক্যাটাগরি, লেখক, পাঠক, অথবা ট্যাগ ফলো দিয়ে রাখলেই ঐ সম্পর্কিত বইয়ের নটিফিকেসন। ৪. বই রিলেটেড বেশি বেশি আর্টিকেল লিখে এবং বই সম্পর্কিত প্রশ্ন করে জিতে নেয়া যাবে পয়েন্টস, স্পেশাল ব্যাজ এবং আকর্ষণীয় বই উপহার। ৫. যারা নিয়মিত পাঠক তাদের জন্য থাকছে ভেরিফাইড প্রোফাইল সহ আরো অনেক কিছু! বইইনফো.কম এর উদ্দেশ্য হলো বাংলা ভাষাভাষী সকল লেখক ও পাঠকদের কে একত্রিত করা। 💕লাইফ টাইম মেম্বার সিপ 💕কোন ধরনের সাবস্ক্রিপশন ফি নেই ♂️রেজিস্ট্রেশন সম্পূর্ণ করুন মোট দুটি ধাপে। ১. সংক্ষিপ্ত তথ্য ও ইমেইল আইডি দিয়ে সাইন আপ করুন। ২. ইউজারনেম এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করুন। তাই দেরি না করে এখনি চলে আসুন বইয়ের দুনিয়ায়, আমরা তৈরি করতে চাই বই পাঠকের এক নতুন দুনিয়া! ফ্রি রেজিস্ট্রেশন করতে এখনই ক্লিক করুন। ♂️ boiinfo.com

জর্জ অরওয়েল – মাহমুদ মেনন

জর্জ অরওয়েল  –   মাহমুদ মেনন
Please Rate This Article

ধরুন – আপনার রাষ্ট্রে সর্বেসর্বা একটি মাত্র দল বা পার্টি । তাঁদের মতাদর্শের থেকে ভিন্ন কোনো কিছুর কোনো অস্তিত্ব সেখানে নেই । দলের ক্ষমতা Absolute, নিরঙ্কুশ, অসীম এবং সকল প্রশ্নের উর্দ্ধে !
.
ধরুন – দলের শীর্ষ নেতৃত্বের অবস্থান ঈশ্বর-সমান । তিনিই সর্বেসর্বা, Absolute, তিনিই একক এবং নিরঙ্কুশ ।
.
ধরুন – আপনার বাসায় রুমে বসানো আছে এমন একখানা যন্ত্র যা দিয়ে আপনাকে প্রতিমূহুর্তে নজরে রাখা হয় । প্রতিটা শব্দ, প্রতিটা নি:শ্বাসে খেয়াল রাখা হয় । আপনি কি খাচ্ছেন, পড়ছেন, পরছেন, লিখছেন সব দেখা হয়, শোনা হয় ।
.
ধরুন – আপনার অফিসেও বসানো আছে একই যন্ত্র যা দিয়ে আপনার প্রতিটি কাজ, কথা, আলোচনা, ডিল তীক্ষ্ণ নজরে রাখা হয় ।
.
ধরুন – আপনার শহরে প্রতিটা জায়গায় বসানো আছে এমন যন্ত্র যা আপনার প্রতিটা চলাফেরা, কার সাথে মিশছেন, কথা বলছেন, কোথায় যাচ্ছেন, কি খাচ্ছেন তা নজরে রাখা হয় ।
.
ধরুন – নজর রাখা হয় আপনার প্রতিটা ফোনকল, মেসেজ, ইমেইল সবকিছুতেই ।
.
ধরুন – আরও আছে ‘থট পুলিশ’, যারা আপনার চিন্তা-ভাবনাকে পড়তে পারে, চিন্তার অপরাধও ধরতে পারে ।
আপনার কথায়, কাজে, চিন্তায়, চলাফেরায়, আচার-আচরণে কোনোরকম কোন সন্দেহ দেখা দিলেই গভীর রাতে বাসায় এসে আপনাকে তুলে নিয়ে যায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী । তারপর আপনি শ্রেফ গুম হয়ে যান চিরজীবনের তরে ! আপনাকে বাষ্পীভুত করে দেয়া হয় !
.
ধরুন – নিয়ম করে পালন করা হয় ঘৃণা-ঘন্টা কিংবা ঘৃণা-সপ্তাহ, যেখানে দলের সাথে ভিন্নমত পোষণকারীদের উদ্দেশ্যে মানুষের মনে তীব্র ঘৃণা এবং জিঘাংসা জাগিয়ে তোলা হয় সিস্টেমেটিক উপায়ে ।
.
ধরুন – বিনোদন বলতে বোঝানো হয় সত্যিকারের যুদ্ধের ভিডিও প্রদর্শনী । কিভাবে বোমা মেরে উড়িয়ে দেয়া হচ্ছে প্রতিপক্ষের হাত-পা-মাথা-মগজ, কিভাবে গুলিতে ঝাঁঝরা করে দেয়া হচ্ছে কোলের বাচ্চাটিকে, কিভাবে নৌকা ডুবিয়ে মেরে ফেলা হচ্ছে শত শত মানুষগুলোকে সেগুলোর সত্যিকারের দৃশ্যই সিনেমা ! আরও আছে প্রতিমাসে শহরে আয়োজন করা ফাঁসির উৎসব । ছেলে-বুড়ো-বাচ্চা সবাই সেখানে দেখতে যেতে বাধ্য । দেখে দর্শক বিনোদিত হয়, উত্তেজিত হয়, আনন্দ পায় ।
.
ধরুন – লাগাতার প্রচারিত হচ্ছে মিথ্যে পরিসংখ্যান, যেখানে বলা হচ্ছে দেশের জিডিপি, মাথাপিছু আয়, উৎপাদন সব কিছু বেড়েই চলেছে, বেড়েই চলেছে; যদিও বাস্তবে মানুষ না খেয়ে মারা যাচ্ছে, রেশনের পরিমান প্রতিমাসে কমেই চলেছে ।
.
ধরুন – প্রতিনিয়ত বদলে দেয়া হচ্ছে অতীতকে । অতীতের সমস্ত খবরের কাগজ, বই, রেকর্ড সবকিছু লেখা হচ্ছে নতুন করে, পাল্টে দিয়ে । ধরে ধরে বাষ্পীভুত করে ফেলা হচ্ছে বয়ষ্ক মানুষদেরকে, যাঁদের মস্তিষ্কের স্মৃতিতে এখনও বেঁচে আছে কিছুমাত্র সত্যি অতীত ।
.
ধরুন – ভালবাসা, নারী-পুরুষের স্বাভাবিক চিরন্তন আকর্ষণ সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ । দলের প্রতি একচ্ছত্র নিবেদন ছাড়া আর যেকোনো ধরণের অনুভূতি শাস্তিযোগ্য় অপরাধ ! এবং তার শাস্তি বাষ্পীভূত হওয়া ।
.
ধরুন – বদলে ফেলা হচ্ছে ভাষাকেও । বাদ দেয়া হচ্ছে স্বাধীনতা, উদারতা, মুক্ত – এমন শব্দগুলো, যেন চিন্তার পরিধিটা যতটা সম্ভব ছোট করে আনা যায় । মানুষ যখন এসমস্ত শব্দই চিনবেনা, জানবেনা, তখন এগুলো নিয়ে চিন্তাও করতে পারবে না ।
.
কি আমাদের চারপাশের সাথে কিছুটা পরিচিত লাগছে ?
.
নাহ্, গল্পটা ইংরেজ লেখক-সাংবাদিক জর্জ অরওয়েলের লেখা বিখ্যাত উপন্যাস ‘Nineteen Eighty-Four (1984)’
.
ঈদের ছুটিতে শেষ করলাম ১৯৪৯ সালে প্রকাশিত এই অতিবিখ্যাত Dystopian Social Science Fiction উপন্যাস খানা । ‘ঐতিহ্য’ থেকে প্রকাশিত ‘মাহমুদ মেনন’ এর অনুবাদ । স্বাভাবিক চিন্তা-চেতনা-ভাবনার একদম বিপরীতে লেখা হয়েছে এটি । পড়তে গিয়ে বারবারই মাথা ভার হয়ে এসেছে, চাপ অনুভব করেছি । এতখানি ভয়াবহ বিপরীত চিন্তা-চেতনা অন্ত:ত আমার মাথায় সহ্য করতে কষ্ট হয়েছে । কিছু পাতা পড়ার পরেই একটা করে ৫-১০ মিনিটের ব্রেক নিয়েছি । তারপর আবার পড়া শুরু করেছি । এভাবে বইটি ৩২০ পাতার বইখানা শেষ করেছি ৩ দিনে ।
.
লেখক জর্জ অরওয়েল ১৯৪৯ সালে বসে আসছে সময়ের যে ভয়াবহ রাজনৈতিক নিষ্পেষণের ভবিষ্যতবাণী করে গিয়েছেন, তা সাদাচোখে অনেকখানি বাড়াবাড়ি মনে হলেও আসলে কি খুব কষ্ট কল্পনা ? Mobile phone-Computer-Smart speaker-Personal assistant নামক যন্ত্রগুলোর মাধ্যমে এখন কি আমাদের সমস্ত কথা, লেখা, মেসেজ, ইমেইল, চলাফেরা সবই শোনা হচ্ছে না, দেখা হচ্ছে না, Track করে হচ্ছে না ? চরম একনায়ককেন্দ্রীক কিংবা কর্তৃত্ববাদী সরকার ব্যবস্থায় পৃথিবীর অনেক দেশের পরিস্থিতিই কি এর কাছাকাছি নয় ? তথাকথিত অনেক গণতান্ত্রিক দেশের অবস্থাও কি খুব আলাদা কিছু ?
.
নাগরিকদের উপর তীক্ষ্ণ নজরধারী, আড়িপাতা, ভিন্নমত পোষণকারীদের উপর অত্যাচার-গুম করা, মত প্রকাশের স্বাধীনতায় কড়াকড়ি, সবসময় কোনো না কোনো দেশ-ধর্মবিশ্বাস-গোষ্ঠীকে শত্রু বানিয়ে নাগরিকদের দৃষ্টি তার উপর রাখা, মিথ্যা পরিসংখ্যান, শিল্প-সাহিত্যের উপর দৃশ্য কিংবা অদৃশ্য রাজনৈতিক সেন্সরশীপ – এসব কিছু কিন্তু খুব ভাল ভাবেই আছে – অনেক দেশে, আমাদের আশেপাশেও ।
.
নাগরিকদের উপর তীক্ষ্ণ নজরধারী, আড়িপাতা, ভিন্নমত পোষণকারীদের উপর অত্যাচার-গুম করা, মত প্রকাশের স্বাধীনতায় কড়াকড়ি, সবসময় কোনো না কোনো দেশ-ধর্মবিশ্বাস-গোষ্ঠীকে শত্রু বানিয়ে নাগরিকদের দৃষ্টি তার উপর রাখা, মিথ্যা পরিসংখ্যান, শিল্প-সাহিত্যের উপর দৃশ্য কিংবা অদৃশ্য রাজনৈতিক সেন্সরশীপ – এসব কিছু কিন্তু খুব ভাল ভাবেই আছে – অনেক দেশে, আমাদের আশেপাশেও ।
.
ভবিষ্যতের পৃথিবী আরও বেশী ১৯৮৪’র কাছাকাছি যাবে কি না, না কি আরও দূরে যাবে তা কেবল মাত্র সময়ই বলে দিবে । তবে ২০২২ এ বসে প্রায় ৭৩ বছর আগের করা ভবিষ্যৎবাণীর অনেক কিছুই আমি মিলে যেতে দেখছি ।

 

Related Posts

Leave a comment

নতুন প্রকাশিত হওয়া আর্টিকেলগুলো

boiinfo.com Latest Articles

রূপকথন   –   বন্যা হোসেন

রূপকথন – বন্যা হোসেন

...

মা  –  আনিসুল হক

মা – আনিসুল হক

...

প্রিয় মায়াবতীর মায়া

প্রিয় মায়াবতীর মায়া

...

প্রিয় মায়াবতীর মায়া

প্রিয় মায়াবতীর মায়া

...

ফুল ফুটেছে বনে : আবদুল হক

ফুল ফুটেছে বনে : আবদুল হক

...

জমজম :যুবাইর আহমাদ তানঈম

জমজম :যুবাইর আহমাদ তানঈম

...

নারীবাদী বনাম নারীবাঁদি

...

কথুলহু    –   আসিফ রুডলফায

কথুলহু – আসিফ রুডলফায

...

তাফসীরে উসমানী

তাফসীরে উসমানী

...

And Then There Were None    –    Agatha Christie

And Then There Were None – Agatha Christie

...

বিষাদবাড়ি    –     Nahid Ahsan

বিষাদবাড়ি – Nahid Ahsan

...

ছায়ানগর

ছায়ানগর

...

মনে থাকবে    –     আরণ্যক বসু

মনে থাকবে – আরণ্যক বসু

...

And Then There Were None   –    Agatha Christie

And Then There Were None – Agatha Christie

...

পিনবল

পিনবল

...

লেজেন্ড    –    ম্যারি লু

লেজেন্ড – ম্যারি লু

...

প্রশ্নগুলোর উত্তর দিন ⤵️